শর্ট সার্কিট থেকে আগুনে দগ্ধ হয়ে নিহত ৮

জয়পুরহাট শহরের আরামনগর এলাকায় বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুন লেগে একই পরিবারের আটজনের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আহতদের ঢাকার উদ্দেশে নিয়ে যাওয়া অ্যাম্বুলেন্সের চালক মজনু মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলেন—দুলাল হোসেন ওরফে চান্দু (৬৫) আরামনগর এলাকার দুলাল হোসেনের স্ত্রী মোমেনা বেগম (৬০), তার ছেলে মুরগি ব্যবসায়ী মোমিন আহমেদ (৩৫) মোমিনের স্ত্রী পরিনা বেগম (৩২), নিহত মোমিনের মেয়ে হাসি (১৫), খুশি (১৫), বৃষ্টি (১৪) ও দেড় বছরের ছেলে নূর।

অ্যাম্বুলেন্সের চালক মজনু বলেন, দগ্ধদের দুটি অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকায় নেয়ার পথে যমুনা সেতু পার হওয়ার আগেই বৃহস্পতিবার ভোরে চারজনের মৃত্যু হয়। পরে আরো একজনের মৃত্যু হয়। জয়পুরহাট ফায়ার সার্ভিস স্টেনের ইনচার্জ সিরাজুল ইসলাম জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণ করা হচ্ছে বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে এ অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত।

পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস জানায়, রাতে বাসায় রাইস কুকারে রান্না করার সময় বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত ঘটে এবং পুরো বাড়ি পুড়ে যায় একই পরিবারের তিনজন নিহত হন। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতালে ভর্তি করায়। পরে সেখানে থেকে তাদের ঢামেকে নিয়ে যাওয়ার পথে আরো পাঁচজনের মৃত্যু হয়।

প্রত্যক্ষদর্শী এলাকাবাসী আহসান ও রমিছা জানান, আগুন দেখে আমরা এগিয়ে গিয়ে জানালা ভেঙে পরিবারের ৮ সদস্যের মধ্যে শিশুসহ পাঁচজনকে বাইর করতে পারলেও আগুনের তাপের কারণে বাকিদেরকে আর বের করতে পারিনি।

জয়পুরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি-তদন্ত) মমিনুল হক বলেন, ঘটনাস্থলেই তিনজন মারা যান। দগ্ধ পরিবারের অন্য পাঁচ সদস্যকে প্রথমে জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে স্থানান্তর করা সিদ্ধান্ত হয়। জয়পুরহাট পুলিশ সুপার রশিদুল হাসান বলেন, ফায়ার সার্ভিস ও পুলিশ বিভাগ ঘটনার তদন্ত করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *